পিরিয়ডের ব্যাথা থেকে মুক্তি পাওয়ার ৫টি উপায়

প্রতি মাসেই শারীরিক স্বাভাবিক প্রক্রিয়ায় যন্ত্রণার মুখোমুখি হন বহু নারী। পিরিয়ডের দিনগুলো অন্য স্বাভাবিক দিনগুলোর চেয়ে একটু ভিন্ন রকম থাকে। হরমোনের কারণে কিছু শারীরিক ও মানসিক পরিবর্তন ঘটে৷ এই সময় মেয়েদের শরীর অন্য সময়ের তুলনায় একটু বেশি দুর্বল থাকে। সারাদিন কিছু খেতে ইচ্ছে না করা সহ আরো নানা সমস্যা দেখা দেয়। তবে সুস্থ থাকতে হলে অবশ্যই নিয়মিত খাওয়া দাওয়া করতে হবে।

শরীরিক সমস্যার সাথে পিরিয়ডের সময়টাতে মুড সুইং এর অনেক সমস্যা দেখা দেয়। কথায় কথায় উত্তেজিত হওয়া যাওয়া, রাগ হওয়া যাওয়াসহ বিভিন্ন সমস্যা দেখা দেয়। তবে মন ভালো রাখার চেয়ে শরীর ভালো রাখা আগে জরুরি। পিরিয়ডের সময় কিছু খাবার খেলে ব্যাথা অনেকাংশে কমে যেতে পারে।

কিশমিশ ও জাফরান:

পিরিয়ডের সময় আপনার সকালে ভেজানো কিশমিশ এবং কেসার (জাফরান) খাওয়া উচিত খালি পেটে।ব্যাথা কমাতে এবং অতিরিক্ত রক্তক্ষরণ নিয়ন্ত্রণ করতে কিশমিশ উপকারী। সেই সঙ্গে পিরিয়ডের ব্যাথা কমাতে কাজ করে জাফরান।

সব খাবারের সাথে ঘি:

পিরিয়িডের সময় সকাল, দুপুর আর রাত প্রতিবেলার খাবারে এক চা চামচ ঘি খাওয়ার চেষ্টা করুন। এতে করে ব্যাথা অনেকটা কমে আসবে।

দই ভাত:

পিরিয়ডের সময়গুলোতে আপনি দই দিয়ে ভাত খেতে পারেন।দইতে ক্যালসিয়াম রয়েছে আর ভাতে রয়েছে ম্যাগনেসিয়াম এবং থায়ামিন। এগুলো পিরিয়ডের ব্যাথা কমানার জন্য কার্যযকর।

বাদাম:

যেকোন ধরণের বাদাম বিশেষ করে কাজু বাদাম খাওয়ার চেষ্টা করুন। বাদাম পিরিয়ডের সময় আপনার পেট ব্যাথা কমাতে সাহায্য করে।

খিচুড়ি:

পিরিয়ড চলাকালীন রাতের খাবারে খিচুড়ি যোগ করতে পারেন। এতে করে আপনার বমি বমি ভাব দূর হবে, মুড সুইং এর সমস্যাও কমবে। সেই সাথে পেট ব্যাথা কমবে। খিচুড়িতে থাকা উপাদান ওভারির সুস্থতা প্রদান করে।

শেয়ার করুন-

Leave a Reply